আজ- মঙ্গলবার, ২৫শে জুন, ২০২৪ | ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১     

 আজ -মঙ্গলবার, ২৫শে জুন, ২০২৪  | ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ | ১৮ই জিলহজ, ১৪৪৫                                                   বিকাল ৫:৫৭ - মিনিট |

 

Homeগ্রাম-বাংলাভাঙা রাস্তায় গাড়ি চলে না, চালু হয় না ফায়ার স্টেশন

ভাঙা রাস্তায় গাড়ি চলে না, চালু হয় না ফায়ার স্টেশন

আগুন নেভাতে ও দুর্যোগ মোকাবিলায় ১৯ মাস আগে পটুয়াখালীর গলাচিপায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের ভবন নির্মাণ করা হয়। কিন্তু ভাঙাচোরা রাস্তার কারণে স্টেশনটি অব্যবহৃত পড়ে আছে। এরই মধ্যে আশপাশের এলাকায় আগুন লাগার কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। গত সেপ্টেম্বর মাসেই গলাচিপা শহরে আগুনে নয়টি দোকান পুড়ে গেছে। ফায়ার সার্ভিস স্টেশনটি চালু থাকলে ক্ষয়ক্ষতি আরও কম হতো বলে স্থানীয়রা মনে করছেন।

ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের জন্য দুটি অগ্নিনির্বাপণ গাড়িসহ প্রয়োজনীয় লোকবলও বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু গলাচিপা স্টেশনটি চালু না হওয়ায় লোকবল অন্যত্র প্রেষণে পাঠানো হয়েছে।

গণপূর্ত বিভাগ পটুয়াখালীর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হারুন অর রশিদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘গলাচিপায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নির্মাণকাজ শেষ হলেও এখনো বুঝিয়ে দেওয়া যায়নি। গাড়ি যাওয়া-আসার সড়ক না থাকায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সড়কটি পৌরসভার এবং সড়ক নির্মাণে আমাদের বরাদ্দ না থাকায় বিষয়টি পৌরসভাকে জানিয়েছি।’

সড়কটি পৌরসভার এবং সড়ক নির্মাণে আমাদের বরাদ্দ না থাকায় বিষয়টি পৌরসভাকে জানিয়েছি।

মো. হারুন অর রশিদ, নির্বাহী প্রকৌশলী, গণপূর্ত বিভাগ, পটুয়াখালী

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর একটি সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান। অগ্নিনির্বাপণ, অগ্নিপ্রতিরোধ, উদ্ধার, আহত ব্যক্তিদের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান, মুমূর্ষু রোগীদের হাসপাতালে পাঠানোসহ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের সেবায় কাজ করেন কর্মীরা। এ লক্ষ্যে ২০১৭ সালে দেশের গুরুত্বপূর্ণ জেলা ও উপজেলায় ১৫৬ ফায়ার প্রকল্পের আওতায় গলাচিপা উপজেলায় একটি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়।

গণপূর্ত বিভাগ পটুয়াখালী কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৭ সালের অক্টোবরে গলাচিপার পুরোনো লঞ্চঘাট সড়কের পাশে ৩৩ শতাংশ জমির ওপর গণপূর্ত বিভাগ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন নির্মাণের কাজ শুরু করে। স্টেশনের সীমানাপ্রাচীরসহ অবকাঠামোর নির্মাণকাজ শেষ হয় ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে। স্টেশনটি নির্মাণে ব্যয় হয় ৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা। এর পর থেকে স্টেশনটি বুঝে নেওয়ার জন্য ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স পটুয়াখালী কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. নিজামউদ্দিন একাধিকবার অধিদপ্তরে চিঠি দেন।

সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা যায়, পুরোনো লঞ্চঘাট সড়কটি ক্ষতবিক্ষত। তার এক পাশে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের নতুন ভবনটি দাঁড়িয়ে আছে। ১২ ফুট চওড়া সড়কটির ৩০০ ফুট অংশ মেরামত হলেই এটি লঞ্চঘাট মূল সড়কের সঙ্গে যুক্ত হবে। সড়কটি গলাচিপা পৌরসভার আওতায়। তাই ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর থেকে নতুন এই স্টেশনটি বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে না বলে জানা গেছে।

রিলেটেড আর্টিকেল

16 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

রিসেন্ট কমেন্টস

<